.“...ঝড়ের মুকুট পরে ত্রিশূণ্যে দাঁড়িয়ে আছে, দেখো স্বাধীন দেশের এক পরাধীন কবি,---তার পায়ের তলায় নেই মাটি হাতে কিছু প্রত্ন শষ্য, নাভিমূলে মহাবোধী অরণ্যের বীজ... তাকে একটু মাটি দাও, হে স্বদেশ, হে মানুষ, হে ন্যাস্ত –শাসন!— সামান্য মাটির ছোঁয়া পেলে তারও হাতে ধরা দিত অনন্ত সময়; হেমশষ্যের প্রাচীর ছুঁয়ে জ্বলে উঠত নভোনীল ফুলের মশাল!”~~ কবি ঊর্ধ্বেন্দু দাশ ~০~

শুক্রবার, ২৩ জানুয়ারী, ২০১৫

ঘর্মাক্ত চাঁদ


(C)Image: ছবি

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

।। শমীক চৌধুরী ।।


পৃথিবী গেছে ঘুমিয়ে। আমি রাত জাগি।
আমার কাজ আলো দেখানোর
হাতল ভাঙ্গা কাস্তে আকারের আমি।
তারারাও আজ জেগে আছে সাথে
কাজ -বিশ্রাম নিয়মানুসারে।
মেঘের সঙ্গে কুয়াশা নিয়েছে ছুটি।

হাওয়া কি আজ বদলালো দিক ?
চাপা আগুন জ্বলে ধিক ধিক
পোড়া গন্ধে ব্যতিক্রমের আঁচ।
নীচে তাকিয়ে ঘামছি যে আজ ।
হাতল ভাঙ্গা কাস্তে আকারের আমি।




সোমবার, ১৯ জানুয়ারী, ২০১৫

পরিচয়


        অনেক দিন পর আবার লেখার ভূত টা মাথার ভিতর নড়ে উঠল নাঃ একটু পর লিখব, কাজ আছে অনেক, শেষ করতে হবে বলে নিজেকে বোঝাচ্ছিকিন্ত কিছুতেই বুঝতে চাইছে না তাই লিখতে বসেই পড়লামকত ভাবি, নানা রংচং মাখানো উপন্যাস লিখব কিন্ত ভূত বাবাজি কিছুতেই আইডিয়া দেবে নাশুধু বলে, জীবনী লেখ, জীবনীআর কত জীবনী লিখব বলুন তো !প্রথম দুটো তো নিজের জীবনের অভিজ্ঞতা থেকেই লিখলামআর নয়, এবার অন্য কিছু
          কিন্ত কে কার কথা শোনেভূত টা বলেই চলেছে জীবনী লেখ্, জীবনী ছোট বেলা থেকে মহাত্মা গান্ধী, বিবেকানন্দর জীবনী লিখে লিখে মাথাটা বলতে পারেন জীবনী দিয়েই ভরে গেছে, অন্য কিছু আর ভাবতেই পারে নাতাই ঠিক করলাম জীবন নিয়েই লিখব ভয় পাবেন না এবার আর নিজের জীবন নিয়ে নয়এবার লিখব আরেক জনের জীবন নিয়ে
         শিপ্রা রাণী দেব আমার বিবি শিপ্রা রাণী নামটা হয়ত বিবি নিজেই ভুলে গেছে বিবি আমাদের বাড়িতে কাজ করতে এসেছিল যখন ওর বয়স ছিল - নয় বা দশ বয়সটাও ঠিক বিবি জানে নাবুড়ি মাসি মানে ওর মা, আমাদের বাড়িতে কাজ করতআমার তখন জন্মই হয়নি দাদার জন্মের পর ওকে দেখার জন্য মাঝ বয়সি একটা মেয়ে খোঁজা হচ্ছিলএকদিন ভোর বেলা বুড়ি মাসির নম্বর মেয়ে - যার নাম শিপ্রা রাণী দেব, মার হাত ধরে এসেছিল আমাদের বাড়িতেআমার মা ওকে নাম জিজ্ঞেস করতেই বলে ছিল শিপ্রা মা বললো নামটা ভাল, কিন্ত সবসময় ডাকার জন্য একটা ছোট্ট সোজা নাম হলে ভাল হয়ওই দিন থেকে শিপ্রার নাম হয়ে গেল শিবিশিবি খুব ভাল ভাবে আমাদের বাড়ীর জীবনের সাথে মিশে গেলকিছু দিনের মধ্যেই পরিবারের সদস্য হিসেবেই জায়গা করে নিল
        এবার আমি জন্ম নিলামকথা শেখার পর শিবিআর কোন ভাবে উচ্চারণ করতে পারলাম না তাই শিবি হয়ে গেল বিবি আমার বিবি বিবি আমাদের সব আবদার মেটাতোআমার চুল বেধে দেওয়া ,সাজিয়ে দেওয়া, খাইয়ে দেওয়া সব বিবির কাজ ছিলমার থেকে বিবির কাছে আমাদের আবদার ছিল বেশি রকম ভাবেই জীবন কাটছিল সবারবিবি নিজের বাড়ি যখন যেত, তখন আমি, দাদা আর ভাই খুব কান্নাকাটি করতামসাত দিনের ছুটিতে গিয়ে আমাদের কান্না কাটির ঠেলায় দুদিনে ফিরে আসত বিবি
       আমরা বড় হচ্ছিলাম আর বিবি যুবতীহঠাৎ একদিন, বুড়ি মাসি বাপি আর মার কাছে বললো বিবির বিয়ের কথা মা বাপি, বিবির বিয়ের দায়িত্ব নিজেদের হাতেই নিয়েছিলেনএবার শুরু হল বিবির জন্য ছেলে খোজাবুড়ি মাসি একটা দুটো বিয়ের সম্বন্ধের খবর নিয়েও আসছিলওর কাছেই জানা গেল ছেলের বাড়ির যৌতুক এর দাবীর কথামেয়ে একটু হলে পড়াশুনো জানতে হবে অন্তঃত নিজের নামের হস্তাক্ষরটা পারতেই হবেআর কিছু সোনা দানা ছেলের জন্য - একটা আংটি আর একটা সাইকেল দিলে তো কথাই নেইসোনা দানা, ছেলের আংটি, সাইকেল ইত্যাদি দেওয়াতে কোনো অসুবিধাই ছিল না মা বাপি তার চেয়ে বেশিই দেবেন ভাবছিলেনকিন্ত বাধ সাধল বিবির পড়াশোনা
বিবি সব দিকে খুব গুনী ছিলকিন্ত স্কুলে আর যাওয়া হয়ে ওঠেনি ওর তাই --- বলুন আর A,B,C,D - সব কিছুই ওর কাছে কালো অক্ষর ছিলবাড়িতে সবাই বেশ চিন্তায়, কী হবে এখন? সবাই  মিলে বিবিকে , শেখানোর চেষ্টায় বসলেন বিবিও চেষ্টা শুরু করল কিন্ত সাত দিনে কি আর পনের বছরের শিক্ষা দেওয়া বা নেওয়া যায়তাই সবই গুলিয়ে যাচ্ছিলওদিকে আরো একটা পাত্রের খবর নিয়ে এলো বুড়ি মাসি ছেলের বাড়ির লোকদের বাড়িতে আসার দিনও ঠিক হয়ে গেল কিন্ত্ এদিকে বিবি যে , তেই আছে , তে কবে যাবে ঠিক বোঝা যাচ্ছিল নাতাই ঠিক হল শুধু নামটাই ওকে শেখানো হবে শিপ্রা রানী দেব বারবার বিবি ওই নামটা লিখছিলো নামটা বিবি লিখতে শিখে গেল বা বলব জোর করে শেখানো হল

           ছেলের বাড়ির লোকরা এলো সন্ধেবেলাবাড়িতে বেশ একটা উৎসব উৎসব ভাব ছিলবিবির সাথে আমরা ভাই বোনেরা সেজে গুজে রেডি মা, বাপি, বুড়ি মাসি আর বিবির কিছু আত্মীয় স্বজন প্লেট ভরতি মিষ্টি আর সিঙ্গাড়া খাওয়ার পর পাত্রের মা বিবিকে জিজ্ঞেস করলেন – ‘পড়তে লিখতে পারো?’ বিবি আমাদের সবার মুখের দিকে একবার তাকালোতারপর বললো নামটা পারিভদ্রমহিলাও মেয়ে কিনতে এসেছিলেনতাই যাচাই করতে ছাড়েননি জানি না নিজে কতটুকু পড়াশোনা করেছিলছেলে তো ছিল ক্লাস এইট ফেলবললো – ‘নাম টা লিখে দেখাওবিবি আবার আমাদের দিকে তাকালো আর কাঁপা কাঁপা হাতে খাতা পেন্সিলটা তুলে নিল নিজের কোলে নামটা বিবি লিখেছিল কিন্ত ভয়ে ওর হাত টা কেঁপে গিয়েছিল তাই লেখাটা ঠিক বোঝা যাচ্ছিল না ব্যাপারটা ভদ্রমহিলার ঠিক পছন্দ হলো না পরের প্রশ্ন টাই ছিল বাবার নামটা তবে এবার লেখ বিবি ভয় পেয়ে গেলআর ওর সাথে আমরা সবাইবিবি তো শুধু নিজের নামটাই শিখেছিল, বাবার নামটা তো ছিলো সিলেবাসের বাইরেরতাই ওই যাত্রায় বিবির বিয়েটা আর হলনা রকম অনেক লোক আসলো বিবির জীবনে, থালা ভর্তি মিষ্টি সিঙ্গাড়াও খেলো এবং শিপ্রা রাণী দেবের কাঁপা কাঁপা অক্ষরে লেখা নামটাও দেখে গেলবিয়ে আর ঠিক হয়না বিবিরবুড়ি মাসি খুব চিন্তায়আর ওকে দেখে আমার মা বাবাতবে যা হয়, ভগবান নামের ভদ্রলোকটা সবার জন্যই কাউকে না কাউকে ঠিক করেই রাখে বিবির জীবনে ওই ভদ্রলোক চলে এলেনবিবি কিন্ত কাঁপা কাঁপা হাতে ওর নামটা ওই ভদ্রলোকের সামনেও লিখেছিলবিয়ে হল বেশ ধুমধাম করেই বিবি বেশ খুশি খুশিই শ্বশুর বাড়িতে জীবন কাটাছিলআর আমরা ওকে ছাড়া থাকার চেষ্টা করে যাচ্ছিলাম
        বিবি অন্তঃসত্বা, আমি তখন ক্লাস সিক্সে, বুদ্ধিটা বরাবরই পাকা ছিল আমারবিবিকে বললাম, “দেখ কোনো ভাবে যেন পাঁচ-ছটা ছেলে মেয়ে তোর হয় না বিবি গম্ভীর ভাবে আমার কথা শুনত আর এমন ভাব করত যেন দশ বছরের আমিমেয়েটা সংসার সম্মন্ধে সব জানিবিবি কে উপদেশ দিতে বেশ ভাল লাগত আমারনিজেকে বেশ বড় বড় মনে হত ২রা অক্টোবর বিবির ছেলে হল - নাম রাখা হল মোহনআবার আমি উপদেশ দিলাম বিবি ওকে কিন্ত খুব পড়াশোনা করাতে হবেবিবি চিন্তায় পড়ে যেত কিন্ত নিজের অন্ধকার জীবনটা যেন ছেলের না হয়, সেই চেষ্টাই চালিয়ে যেতছেলেটার স্কুলে ভর্তির সময় হল ইনটারভিউএ বিবি কোনো প্রশ্নেরই জবাব দিতে পারেনি তাই ওর ছেলের অ্যাডমিশনটাও হয়নি ভগবানেরও বিবির জন্য কষ্ট হচ্ছিলছেলেটা তাই হয়তো পড়াশুনোয় ভাল হয়েছিল
           জীবন চলতে লাগল , আর বিবির জীবনে এলনা কিন্ত বিবির ছেলে মাধ্যমিকে ফিফ্থ পজিসন আসলোপেপার মোহন এর নাম বেরোলমা বাবা কেও জিজ্ঞেস করেছিল নানা প্রশ্নবিবি চুপ করেই বসেছিলপাছে ওর নিরক্ষরতার খবর বেরিয়ে পড়ে আমার ওই দিন বিবিকে অনেক শিক্ষিত মনে হচ্ছিল বিবি শেখেনি, কিন্তু জীবনের শিক্ষায় শিক্ষিত ছিল
             আজ বিবির ছেলে স্বনামধন্য ডাক্তার গাড়ি ,বাড়ি সবই করেছে খুব ভাল ছেলে বিবি কে খুব ভাল করে রেখেছেবিবি আমায় এবার ঢেকেছিল ওর বাড়িতেওর নতুন বাড়ির নেম প্লেটটার মধ্যে বড় করে লেখা ছিল শিপ্রা রাণী দেবশেষ পর্যন্ত শিপ্রা রাণী দেবনিজের নাম টা সবাই কে জানাতে পারলো
           বিবি কিন্তু আমার বিবিই থাকবে আর আমাদের ছেলে মেয়েদের বিবি মাসি বা বিবি পিসি