.“...ঝড়ের মুকুট পরে ত্রিশূণ্যে দাঁড়িয়ে আছে, দেখো স্বাধীন দেশের এক পরাধীন কবি,---তার পায়ের তলায় নেই মাটি হাতে কিছু প্রত্ন শষ্য, নাভিমূলে মহাবোধী অরণ্যের বীজ... তাকে একটু মাটি দাও, হে স্বদেশ, হে মানুষ, হে ন্যাস্ত –শাসন!— সামান্য মাটির ছোঁয়া পেলে তারও হাতে ধরা দিত অনন্ত সময়; হেমশষ্যের প্রাচীর ছুঁয়ে জ্বলে উঠত নভোনীল ফুলের মশাল!”~~ কবি ঊর্ধ্বেন্দু দাশ ~০~

বুধবার, ১ নভেম্বর, ২০১৭

দৈন্যের যাতাকলে


    ।। রফিক উদ্দিন লস্কর  ।।









বিষণ্ণ গোধূলি আহত পক্ষী এখনো ফেরার,
লাল রক্তিম আভা লেগে আছে চিবুকে।
দৈন্যতার যাঁতাকলে তবুও কোন দুঃস্বপ্ন নেই,
ওষ্ঠাগত প্রাণ করে চড়ে পাহাড়ের বুকে।
আগ্নেয়গিরি দাউদাউ করে বর্ষার বিকেলে,
অঝোর ধারা বর্ষণে ঝিকিমিকি বসুন্ধরা,
কোথাও নেই পায়ের ছাপ, সব স্ফটিকের
অতৃপ্ত জ্যান্ত মানুষ কাটছে কারা।
নির্ঘুম রাতে অশ্রু বানে পুরো তছনছ কপোল,
কানে ঘণ্টা বাজায় কপোত কপোতী।
জনহীন শূন্যতায় পুলিশের সাইরেনে ভীত,
জবুথুবু খায় ছোট্ট কক্ষে এক ব্রততী।
লেপটে আছে দেয়ালের গায়ে নেই কোন ছায়া,
এক অদৃশ্য মায়ার খেলা রঙিন চোখে।
কিংকর্তব্যবিমূঢ়! অবসাদে কাটে প্রহর রজনী,
ফুলদানির ফুলের মতো সবকিছু রেখে।
                        ********
০১/১১/২০১৭ইং
নিতাইনগর, হাইলাকান্দি (আসাম-ভারত)





একটি মন্তব্য পোস্ট করুন