.“...ঝড়ের মুকুট পরে ত্রিশূণ্যে দাঁড়িয়ে আছে, দেখো স্বাধীন দেশের এক পরাধীন কবি,---তার পায়ের তলায় নেই মাটি হাতে কিছু প্রত্ন শষ্য, নাভিমূলে মহাবোধী অরণ্যের বীজ... তাকে একটু মাটি দাও, হে স্বদেশ, হে মানুষ, হে ন্যাস্ত –শাসন!— সামান্য মাটির ছোঁয়া পেলে তারও হাতে ধরা দিত অনন্ত সময়; হেমশষ্যের প্রাচীর ছুঁয়ে জ্বলে উঠত নভোনীল ফুলের মশাল!”~~ কবি ঊর্ধ্বেন্দু দাশ ~০~

মঙ্গলবার, ১৪ নভেম্বর, ২০১৭

শিশির ও আয়না

শিশির ও আয়না
১■
শিশিরবিন্দু চোখের খুশি
অল্প সময়
সর্বহারা
শিল্পধারী এলোকেশী।
সল্প স্মৃতি
গল্প অনেক
সুখের চেয়ে জ্বলন বেশি।
.
আয়না জানে--
এলোকেশী সামনে দাঁড়ায়
মনের সুখে দুঃখ হারায়।
২■
ভাঙতে ভাঙতে সবই ফুরায়
জীবন যৌবন সৃষ্টি কৃষ্টি হৃদয় ব্যথা
আয়না যেন মরণপুরির অমর কথা।
.
ঘাসের ডগা শিশির কুড়ায়
শিশির জীবন রোদেই ফুরায়।
৩■
আয়না জানে শিশির কেমন,
মেয়ের সাজে
পাড়ার ছেলে
ঢাকির চালে...
রঙের কাজে রঙিন যেমন,
জলের তালে
ঘাসের জালে
আলোর ছলে
আয়না সাজে শিশির তেমন।
৪■
শিশির বুকে জ্বললে আলো
কাঁচের তাতে কী
আয়না শুধুই ফলন জানে,
দুধের যেমন ঘি।
আলো- কালো অনেক ব্যথা
নকল এক্কা- তাস,
গলির মোড়ে গলে আলো
প্রলেপ বারোমাস।
.............
অভীক কুমার দে




একটি মন্তব্য পোস্ট করুন