.“...ঝড়ের মুকুট পরে ত্রিশূণ্যে দাঁড়িয়ে আছে, দেখো স্বাধীন দেশের এক পরাধীন কবি,---তার পায়ের তলায় নেই মাটি হাতে কিছু প্রত্ন শষ্য, নাভিমূলে মহাবোধী অরণ্যের বীজ... তাকে একটু মাটি দাও, হে স্বদেশ, হে মানুষ, হে ন্যাস্ত –শাসন!— সামান্য মাটির ছোঁয়া পেলে তারও হাতে ধরা দিত অনন্ত সময়; হেমশষ্যের প্রাচীর ছুঁয়ে জ্বলে উঠত নভোনীল ফুলের মশাল!”~~ কবি ঊর্ধ্বেন্দু দাশ ~০~

সোমবার, ২ এপ্রিল, ২০১৮

বিশ্বাস

কি চাও তুমি, চিৎকার করে বলি

"আমি তোমাদের সাথে নেই ,

তোমাদের লোক দেখানো আদর্শ ,

তোমাদের জনদরদী কান্না ,

দফায় দফায় সভা আর আশ্বাস 

আমার ওই সবে আর নেই  বিশ্বাস ।"

তুমি চাও ? আমি চিৎকার করে বলি?

আমি বলবো না।

যত কঠিন নিষেধ থাকুক পথে নামার

আমি মানবো না।

কারণ আমি জানি তোমরাই শেষ কথা নও।

ছোটবেলায় শিখেছিলাম বাবার কাছে 

 সমাজ গড়েছে নাকি তিনটে বিভাগ

কালক্রমে জানা গেল তারও আছে ভাগ।

এখন বুঝতে পারি  যা শিখেছি ভুল

সমাজে বর্তমানে শুধু বিভাগ দুটি

মুষ্টিমেয় ধনী আর মুষ্টিবদ্ধ ধনহীন-ই।

মাঝখানে লুটোপুটি লুডু খেলার গুটি

এইবুঝি সাপে খায়, মই বেয়ে উঠি। 

দুনিয়া জানে, তোমরা নেতারা সবাই 

মুখোশ সর্বস্ব, যার সার ভাষণটাই 

তবু যে আগুন জ্বলছে প্রতিটি হৃদয়ে 

আমি বিশ্বাস রাখি তা নয় নিভিবার ।

যে স্বপ্ন আছে শিয়রে শায়িত

যে প্রত্যয় আছে যতনে লালিত 

আগামী দিনেতে তার জয় দুর্নিবার ।

যতই ভঙ্গ হোক বিশ্বাস বারবার, 

একদিন ঘুচবেই সব অন্ধকার ।

আমার বিশ্বাস, আমাদের বিশ্বাস 

ঘুচবেই ঘুচবে সব অন্ধকার ।





একটি মন্তব্য পোস্ট করুন